তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী, টিকেট ও ভাড়ার তালিকা

তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেন! বাংলাদেশের রেলওয়ে মধ্যে সেরা বিলাসবহুল ও দ্রুতগামী একটি ট্রেন। তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি আন্তঃনগর ট্রেন ঢাকা থেকে সরাসরি চট্টগ্রাম জেলাতে রেল পথে যাত্রীদের বিলাসবহুল ও নিরাপদ ভাবে পরিষেবা দিয়ে চলে আসছে। তাই আজকে আমরা আপনাদের সাথে তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটির বিভিন্ন রকমের সুযোগ-সুবিধা ও যাবতীয় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করতে যাচ্ছি। তাই মনোযোগ সহকারে আমাদের পুরো পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত দেখার অনুরোধ রইলো।

তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি চট্টগ্রাম জেলার মানুষের কাছে একটি নিরাপদ রেলপথের ভ্রমণের নাম। ট্রেনটিতে সব রকমের সুযোগ সুবিধা রয়েছে। যাতে করে যাত্রীরা খুব আনন্দ-বিনোদন সাথে যাত্রা করতে পারে। এক্সপ্রেস এর সর্বোচ্চ গতি 75 কিলোমিটার। অর্থাৎ আপনারা বুঝতেই পারছেন ট্রেনটি অত্যাধুনিক গতি সম্পন্ন একটি ট্রেন। তাই খুব অল্প সময়ে ঢাকা কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে যাত্রা করতে পারবেন। আপনারা যদি তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও টিকিট এর মূল্য সম্পর্কে না জেনে থাকেন তাহলে দয়া করে নিচে দেখে নিন।

তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী

ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম রেলপথের দূরত্ব 346 কিলোমিটার। পৌঁছাতে সময় লাগে প্রায় 6 ঘন্টা 30 মিনিট। আপনাদের জানিয়ে রাখি ট্রেনের নাম্বার হলো (৭৪১-৭৪২)। তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি সঠিক সময়ে রেলওয়ে স্টেশনের ছেড়ে যায়। তাই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপনাকে অবশ্যই রেলওয়ে স্টেশনের অবস্থান করতে হবে। তাছাড়া তূর্ণা এক্সপ্রেস এর সাপ্তাহিক ছুটির দিন নেই বলে আপনি চাইলে সাপ্তাহিক সাত দিনের মধ্যে যেকোনো দিনেই ট্রেন ভ্রমণ করতে পারবেন। নিচে দেখে নিন তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী।

স্টেশন ছুটির দিন ছাড়ায় সময় পৌছানোর সময়
ঢাকা টু চট্রগ্রাম নাই ২৩ঃ৩০ ০৬ঃ২০
চট্রগ্রাম টু ঢাকা নাই ২৩ঃ০০ ০৫ঃ১৫

তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের বিরাটি স্টেশন ও সময়সূচী

ঢাকা কমলাপুর থেকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি মোট সাতটি স্টেশনে বিরতি নিয়ে থাকে। আপনারা চাইলে এই সাতটি স্টেশন থেকেও টিকিট সংগ্রহ করে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা অথবা ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম ট্রেন ভ্রমণ করতে পারবেন। তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি যেসকল স্টেশনে বিরতি নিয়ে থাকে সে সকল স্টেশনের নাম ও সময়সূচী নিচে দেওয়া হল।

বিরতি স্টেশন নাম চট্রগ্রাম থেকে (৭৪১) ঢাকা থেকে (৭৪২)
ফেনী ০০ঃ২৯ ০৪ঃ৩৫
লাকসাম ০১ঃ১৭ ০৩ঃ৫১
কুমিল্লা ০১ঃ৪৫ ০৩ঃ২০
আখাউড়া ০২ঃ৪০ ০২ঃ১৫
বি-বাড়িয়া ০৩;০২ ০১ঃ৪০
ভৈরব বাজার ০৩ঃ২৭ ০১ঃ১৫
বিমান বন্দর ০৪ঃ৩৯ ২৩ঃ৫৭

তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়ার তালিকা

যেহেতু তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি অত্যাধুনিক বিলাসবহুল একটি ট্রেন। এসি নন এসি আসন রয়েছে। আপনি চাইলে যে কোন আসনে টিকিট সংগ্রহ করতে পারেন। শুধু তাই নয় এই ট্রেনটিতে নামাজের জন্য ব্যবস্থা, খাবার সুবিধা, ইত্যাদি সুযোগ-সুবিধা যাত্রীদের জন্য রয়েছে। আসুন দেখে নেই নিচে তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়ার তালিকা।

আসন বিভাগ টিকেটের মূল্য (১৫ভ্যাট)
শোভন চেয়ার ৩৬৫ টাকা
প্রথম বার্থ ৭৫৫ টাকা
স্নিগ্ধা ৬৭৬ টাকা
এসি বার্থ ১২৪৯ টাকা

তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের অনলাইন টিকিট বুকিং

বর্তমানে ঘরে বসে যেকোনো ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করা যায়। এজন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে যাত্রীদের সুবিধার্থে ই-টিকিট ওয়েবসাইট থেকে ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করার ব্যবস্থা করে দিয়েছে। অর্থাৎ আপনি খুব সহজেই এই ওয়েবসাইট থেকে যে কোন ট্রেন অনলাইন টিকিট বুকিং করতে পারবেন।

আশাকরি তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটির সম্পর্কে সব তথ্য আপনাদের সামনে তুলে ধরতে পেরেছি। এছাড়াও আমাদের পোস্টটিতে যদি আপনাদের পড়ে তূর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনটি সম্পর্কে আরো কিছু জানার থাকে। তাহলে দয়া করে অবশ্যই আমাদের নিচে একটি কমেন্ট বক্সে আছে সেখানে যে আপনাদের মতামত দিতে পারেন। আমরা আপনাদের মতামতের উপর ভিত্তি করে পরবর্তী উত্তর দেয়ার সর্বদায় প্রস্তুত থাকি। এতক্ষন আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button