মিতালি এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী, টিকেট, ভাড়ার তালিকা, টিকিট মূল্য ও স্টপ স্টেশন

এই নিবন্ধে আমরা মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী ও ভাড়া বন্ধের দিন এবং অনলাইন টিকিট বুকিং সিস্টেম সম্পর্কে আলোচনা করতে যাচ্ছি। আপনি যদি মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী টিকিট মূল্য অনলাইনে অনুসন্ধান করেন তাহলে এই নিবন্ধে আপনাকে স্বাগতম। আন্তঃদেশীয় যাত্রীবাহী ট্রেন মিতালী এক্সপ্রেস (ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা – নিউ জলপাইগুড়ি, ভারত) চলাচল শুরু করেছে ।

বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের যাতায়াতকারী ট্রেন গুলোর মধ্যে মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেন অন্যতম। এই ট্রেনটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট হতে যাত্রা শুরু করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নিউ জলপাইগুড়ি পর্যন্ত যাতায়াত করে। তাই এপার ওপার বাংলার সংযোগকারী একমাত্র ট্রেন হল মিতালী এক্সপ্রেস। বাংলাদেশ এবং ভারতের মধ্যে যাতায়াতকারী যাত্রীরা যারা সড়কপথে দুই দেশের মধ্যে যাত্রা করে থাকে তাদের মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয় এই ট্রেন মিতালী এক্সপ্রেস। তাই আজকের এই নিবন্ধে আমরা মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচী এবং টিকেট মূল্য আলোচনা করতে যাচ্ছি।

মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেন রুট

ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা – চিলাহাটি – হলদিবাড়ি – নিউ জলপাইগুড়ি, ভারত
নিউ জলপাইগুড়ি – হলদিবাড়ি – চিলাহাটি – ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা
ট্রেনের নাম ও নম্বরঃ মিতালী এক্সপ্রেস (৩১৩১/৩১৩২)

মিতালী এক্সপ্রেস চলাচলের দিন

নিউ জলপাইগুড়ি ছাড়বেঃ রবিবার ও বুধবার
ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা ছাড়বেঃ সোমবার ও বৃহস্পতিবার

মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচি 2023

ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা হতে নিউ জলপাইগুড়ি, ভারত অভিমূখে – ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা (২১ঃ৫০), চিলাহাটি (০৫ঃ৪৫/০৬ঃ১৫), হলদিবাড়ি (০৬ঃ০০/০৬ঃ০৫), নিউ জলপাইগুড়ি, ভারত (০৭ঃ১৫ পৌছবে)।
জলপাইগুড়ি, ভারত (১১ঃ৪৫), হলদিবাড়ি (১২ঃ৫৫/১৩ঃ০৫), চিলাহাটি (১৩ঃ৫৫/১৪ঃ২৫), ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা (২২ঃ৩০ পৌছবে)।
ভ্রমণ দূরত্বঃ ৫৯৫ কিমি (৩৭০ মাইল)
যাত্রার গড় সময়ঃ ১১ ঘণ্টা ৩০ মিনিট
সপ্তাহিক বন্ধঃ ২দিন
ট্রেন কম্পোজিশনঃ
এসি (বার্থ/সিট) – ৪টি
এসি চেয়ার – ৪টি
ব্রেকভ্যানসহ পাওয়ার কার – ২টি

মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেনের ভাড়ার তালিকা

ট্রাভেল ট্যাক্স ৫০০ টাকা সহ –
এসি বার্থ – ৪৯০৫ টাকা
এসি সিট – ৩৮০৫ টাকা
এসি চেয়ার – ২৭০৫ টাকা
আগামী ২৭/০৩/২০২২ইং হতে এই ভাড়া কার্যকর হবে।
বিঃদ্রঃ ৫ বছর বয়স পর্যন্ত বয়সের যাত্রী র টিকেটের ক্ষেত্রে ৫০% বা অর্ধেক ভাড়া প্রযোজ্য হবে। পাসপোর্ট জন্মসাল অনুযায়ী যাত্রীর বয়স নির্ধারণ করা হবে।

মালামাল বহনের সম্ভাব্য খরচঃ
৫ বছরের কম বয়সী যাত্রীর ক্ষেত্রে –
সর্বোচ্চ ২০ কেজি ওজনের মালামাল বিনামূল্যে বহন করা যাবে। ২০ কেজির উপরে কিন্তু ৩৫ কেজির নিচে ওজন হলে প্রতি কেজিতে ২ ডলারের সমপরিমাণ টাকা এবং ৩৫ কেজির উপরে ওজন হলে প্রতি কেজিতে ১০ ডলারের সমপরিমাণ টাকা অতিরিক্ত যুক্ত হবে।

প্রাপ্ত বয়সের যাত্রীর ক্ষেত্রে –
সর্বোচ্চ ৩০-৩৫ কেজি ওজনের মালামাল বিনামূল্যে বহন করা যাবে। এর বেশি ওজনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃক নির্ধারিত হারে অতিরিক্ত খরচ যুক্ত হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button