২০২৩ সালে রোজা শুরু হবে কত তারিখ থেকে ও শেষ হবে কত তারিখে এবং রমজান মাসের ফজিলত

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা আপনারা সবাই কেমন আছেন আশা করি আল্লাহর রহমতে আপনারা সবাই ভাল আছেন!! দেখতে দেখতে ২০২৩ সালে রমজান মাস আবার চলে আসলো। এ রমজান মাসটি আমাদের সকলের জন্য একটি বরকতময় মাস। এই মাসটিতে আল্লাহতালা আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর উপর কোরআন শরীফ নাযিল করেছিলেন।

আসুন বন্ধুরা তাহলে এবার আমরা জেনে নি কোন মাসের কত তারিখ থেকে রোজা শুরু হতে চলেছে

আমরা সবাই জানি যে রমজান মাস গুলো চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করে যে কবে থেকে রোজা শুরু হবে। ২০২৩ সালে ২২ শে মার্চ প্রথমে মক্কাতে চাঁদ দেখার উপরে নির্ভর করে। তারপর ২০২৩ সালে মার্চ মাসে ২৩ তারিখে ১৪৪৪ হিজরীর প্রথম রোজা শুরু হবে আশা করা যাচ্ছে (এটি চাঁদ দেখার উপর নির্ভর করবে)। ২০২৩ সালে ১৪৪৪ হিজরির মার্চ মাসের ২২ তারিখে রাতের আকাশে চাঁদ দেখা গেলে ২৩ তারিখ ভোর রাতে সেহরি খেতে হবে।( আশা করা যাচ্ছে) এই নিয়মে রোজা রাখতে হবে স্থায়ী ৩০টি রোজা হয়ে গেলে।২১,২২ অথবা ২৩ এ এপ্রিলের মধ্যে ঈদুল ফিতর উদযাপনের দিন চলে আসবে। (ইনশাল্লাহ)

আসুন বন্ধুরা এবার আমরা জেনে নি রমজান মাসে রোজা রাখার ফজিলত

ইসলামে আরবি মাসগুলোর মধ্যে সব থেকে বরকতময় ও মর্যাদা সম্পূর্ণ মাস হল রমজান মাস। রমজান মাসে আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাঃ খুবই আনন্দিত থাকতেন। এই মাসটির গুরুত্বপূর্ণ ও অপরিসীম। আমাদের নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম সাহাবাদের উদ্দেশ্যে ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন” তোমাদের দরজায় বরকতময়ী রমজান মাস আসছে তোমরা রোজা রাখো। আরো কুরআন শরীফ পড়ে সাহাবাদের উদ্দেশ্যে বলতেন” হে আমার ঈমানদারগণ “তোমরা রোজা রাখো রোজা তোমাদের উপর ফরজ হয়েছে। (রোজা রাখা বাধ্যতামূলক )যেমন তোমাদের আগে লোকেরা রোজা রাখতেন তোমরাও রাখো যাতে তোমরা মুত্তাকী হতে পারো।
রমজান মাসে রোজা রাখার অন্যতম বৈশিষ্ট্য এবং কিছু ফজিলত উল্লেখ করা হলো”
১. রোজা রাখা

২. কোরআন শরীফ নাযিল হয়েছিল এ মাসে

৩. এ মাসে আল্লাহ তায়ালা বান্দাদের জন্য জান্নাতের আটটি দরজা খুলে দেয় ৪. এ মাসটি দোয়া কবুলের মাস

৫. আল্লাহতালা এই মাসটিতে জাহান্নামের দরজা এবং আজাব বন্ধ রাখে

৬. এই মাসে কোন সৎ কাজ করলে আল্লাহ তার সব গুনে বাড়িয়ে দেন

৭. হজের সোয়াব পাওয়া যায়

৮. এই মাসে রোজ তারই ব্যক্তিদের জন্য বিশেষ ভাবে সম্মানিত করবেন আল্লাহ

৯. এই মাসটি জাহান্নাম থেকে মুক্তির মাস

১০. এই মাসের রোজদারি ব্যক্তি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে দুহাত তুলে তওবা করলে আল্লাহ তা’আলা তার সকল গুনাহ মাফ করে দিবেন ।(ইনশাআল্লাহ)

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button